আমেরিকার বড় অস্ত্র বোমা নাকি ডলার?

যুক্তরাষ্ট্রের এই খামখেয়ালী সর্বগ্রাসী ক্ষমতার বিরুদ্ধে এখন সোচ্চার হচ্ছে বিভিন্ন দেশ। তারা এই একচ্ছত্র ব্যবস্থার বাইরে চলে যাবার চেষ্টা করছে।

আমেরিকার হাতে সবচেয়ে বড় অস্ত্র কি? ক্রুজ মিসাইল? ড্রোন? পারমাণবিক বোমা? মোটেও না। আমেরিকার হাতে সত্যিকার অর্থে যে মারাত্মক অস্ত্রটি রয়েছে সেটি হলো তার ডলার।

যেহেতু বিশ্বের বেশিরভাগ দেশই ডলারের কেনাবেচা করে থাকে। তাই অন্যান্য সকল দেশের উপরই অর্থনৈতিক আধিপত্য করছে আমেরিকার। চাইলেই কোনো দেশের উপর সে চাপিয়ে দিচ্ছে অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা। এটি আমেরিকার অর্থনৈতিক যুদ্ধের হাতিয়ার, যার মাধ্যমে সে তার অপছন্দের দেশকে পঙ্গু বানিয়ে রাখে। পারস্যের দেশ ইরান এই নিষেধাজ্ঞার সর্বশেষ শিকার। 

এই যুদ্ধে আমেরিকার আরো একটি সুবিধা হলো সুইফট (SWIFT) নেটওয়ার্ক। বিশ্বের বেশিরভাগ বাণিজ্যিক লেনদেন নিউইয়র্ক থেকে চালিত হয় এই সুইফটের মাধ্যমে। ফলে কোনো দেশের উপর নিষেধাজ্ঞা জারি হলে, সেই দেশ আর এই সুইফট ব্যবহার করতে পারে না। ফলে তার বিশ্বের সঙ্গে বাণিজ্য থেমে যায়।

আমেরিকার এই খামখেয়ালী সর্বগ্রাসী ক্ষমতার বিরুদ্ধে এখন সোচ্চার হচ্ছে বিভিন্ন দেশ। তারা এই একচ্ছত্র ব্যবস্থার বাইরে চলে যাবার চেষ্টা করছে। অর্থাৎ তারা ডলার ছেড়ে অন্যান্য মুদ্রায় বাণিজ্য করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তৈরি করেছে সুইফটের মতো বিকল্প লেনদেন নেটওয়ার্ক। 

নিজের স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে অন্যের উপর যে চাপ তৈরি করে আমেরিকা তার একটা বড় উদাহরণ হচ্ছে ২০১৮ সালে আমেরিকা নিষেধাজ্ঞা দেয় রাশিয়ান অ্যালুমনিয়াম কোম্পানি রুসালের (RUSAL) ওপর। ফলে রাতারাতি কোম্পানিটির আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। ধ্বস নামে তার বন্ডের মূল্যে।

এই মুহূর্তে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের উপর ৩০ ধরনের নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছে আমেরিকা। ইরানের ওপর জানুয়ারি ১০ তারিখে একটি নিষেধাজ্ঞা চাপিয়েছে, যা ইরানকে কয়েক বিলিয়ন ডলার থেকে বঞ্চিত করবে। মাত্র কয়েকদিন আগে ইরাককে হুমকি দিয়েছে যে, ইরাক আমেরিকার কেন্দ্রীয় ব্যাংকে যে ডলার জমা রেখেছে তা সে ব্যবহার করতে পারবে না। অর্থাৎ তা ফ্রিজ করে দেবে। এর ফলে ইরাক তার তেল বিক্রির টাকা ব্যবহার করতে পারবে না।

 118 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top