গৃহকর্মীকে ধর্ষণ, পুলিশে দিলেন স্ত্রী

রাজধানীর শেওড়াপাড়ায় শ্বশুরবাড়িতে এক গৃহকর্মীকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে জামাই মাহমুদুল হাসানের বিরুদ্ধে। এ ঘটনায় স্বামীকে পুলিশে দিয়েছেন মাহমুদুল হাসানের স্ত্রী।

মাহমুদুল হাসানের স্ত্রীর সহায়তায় মিরপুর মডেল থানায় মামলা দায়ের করেন ওই গৃহকর্মী। পরে মাহমুদুল হাসানকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মাহমুদুল হাসান হবিগঞ্জের চুনারুঘাট থানার লাদিয়া গ্রামের মৃত আব্দুল নূরের ছেলে।

বৃহস্পতিবার আসামিকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মিরপুর মডেল থানার এসআই আব্দুল কাদের।

ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মিল্লাত হোসেন জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আব্দুল কাদের কারাগারে আটক রাখার আবেদনে বলেন, ‘‘ভিকটিমের বাবা-মা নেই। গত দেড় বছর যাবৎ সে আসামির শ্বশুরবাড়িতে গৃহকর্মীর কাজ করছে। গত ২০ ডিসেম্বর ভিকটিম ঘুমিয়ে পড়লে আসামি কৌশলে তার রুমে প্রবেশ করে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।

‘ভিকটিম কান্নাকাটি করলে আসামি তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখায় এবং একাধিকবার ধর্ষণ করে। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময়ে আসামি ভিকটিমকে ধর্ষণ করে। সর্বশেষ গত ৩ ফেব্রুয়ারি রাত সাড়ে ১০ টার দিকে আসামি ভিকটিমকে পুনরায় ধর্ষণ করে।”

মামলা সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদে আসামির দেয়া তথ্য যাচাই বাছাই করা হচ্ছে। তার নাম-ঠিকানা যাচাই বাছাই করা সম্ভব হয়নি। তদন্ত চলছে। এমতাবস্থায় আসামিকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

আসামির পক্ষে অ্যাডভোকেট ফিরোজ আলম জামিনের আবেদন করেন। শুনানিতে তিনি বলেন, ‘মাহমুদুল হাসানকে ষড়যন্ত্র করে মামলায় জড়ানো হয়েছে। তিনি ঘটনার সাথে জড়িত না। এজাহারের বর্ণনা মতে ঘটনার তারিখের অনেক পরে ষড়যন্ত্রমূলক তাকে মামলায় জড়িত করা হয়েছে। তার জামিনের প্রার্থণা করছি। জামিন দিলে তিনি পলাতক হবেন না।’

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এদিকে ধর্ষণের ঘটনায় ওই গৃহকর্মী ৬ ফেব্রুয়ারি মামলাটি দায়ের করেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আসামি তাকে কয়েক দফা ধর্ষণ করেছে। ধর্ষণের বিষয়টি মাহমুদুল হাসানের স্ত্রীকে জানায় সে। তিনি বিষয়টি স্থানীয় জণগনকে জানিয়ে থানায় মামলা দায়েরের পরামর্শ দেন।

ভিকটিমের বলেন, ‘এ ঘটনায় আসামির স্ত্রী অনেক সাহায্য করেছেন। তিনি সাথে করে থানায় নিয়ে মামলা দায়ের করতে আমাদের সাহায্য করেছেন। আসামিকে ধরতে পুলিশকেও সহায়তা করেছেন।’

 148 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top