সংবাদ শিরোনাম:

ভারতকে হারিয়ে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন

ভারতের পাটনায় অনুষ্ঠিত চার দলের টি-টোয়েন্টি সিরিজে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে বাংলাদেশ জাতীয় নারী ক্রিকেট দল। আজ বুধবার সিরিজের ফাইনালে ভারত ‘বি’ দলকে ১৪ রানে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় সালমা-জাহানারারা। 

বাংলাদেশ প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেট হারিয়ে ১১৭ রান করে। জবাবে ৮ উইকেট হারিয়ে ১০৩ রানের বেশি করতে পারেনি ভারত ‘বি’ দল। মজার বিষয় হল লিগ পর্বে ভারত ‘বি’ দলের কাছে একই ব্যবধানে হেরেছিল বাংলাদেশ। আজ একই ব্যবধানে তাদের হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হল।

বাংলাদেশ ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো করেছিল। অবশ্য শেষটা হয়নি প্রত্যাশামাফিক। উদ্বোধনী জুটিতে ২৫ রান তোলেন মুর্শিদা খাতুন ও শামীমা সুলতানা। এরপর ফিরে যান শামীমা। ১৪ বলে ১৩ রান করে ফেরেন তিনি। সেখান থেকে মুর্শিদা ও সানজিদা ইসলাম ৬০ রানের জুটি গড়ে বড় সংগ্রহের ইঙ্গিত দিচ্ছিলেন।

কিন্তু এরপর ছন্দপতন ঘটে। ১ উইকেটে ৮৫ রান করা বাংলাদেশ দলীয় সংগ্রহে পরবর্তী ৩২ রান যোগ করতে হারায় ৭ উইকেট! মুর্শিদা ৩৪, সানজিদা ৩৪, নিগার সুলতানা ১৮ ও শামীমা ১৩ রান করেন। বাকিদের কেউ দুই অঙ্কের কোটা ছুঁতে পারেনি। ফারজানা হক ৩, শবনম মুস্তারি ১, ফাহিমা খাতুন ০, জাহানারা আলম অপরাজিত ২ ও সালমা খাতুন অপরাজিত ৭ রান করেন।

বল হাতে ভারত ‘বি’ দলের তানুজা কানওয়ার ৩টি উইকেট নেন। ২টি উইকেট নেন নুপুর কোহালে।

১১৮ রানের জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশের বোলিং তোপের মুখে পড়ে ভারত ‘বি’ দল। ২ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারায়। ২৫ রানের মাথায় চতুর্থ ও ৪৫ রানের মাথায় পঞ্চম উইকেট হারালে ১১৮ রানের টার্গেট পাহাড়সম হয়ে দাঁড়ায় ভারতের কাছে। এরপর কয়েকটা ছোট ছোট জুটি হলেও টার্গেটের নাগাল পায়নি ভারত।

ভারতের তেজাল হাসাবনিস সর্বোচ্চ ৩৪ রান করেন। অপরাজিত ২১টি রান আসে তানুজা কানওয়ারের ব্যাট থেকে। মিন্নু মানি ১৭ ও সিমরান বাহাদুর করেন ১১ রান। বাকিদের কেউ দুই অঙ্কের কোটা ছুঁতে পারেনি।

বল হাতে বাংলাদেশের জাহানারা আলম ও সালমা খাতুন ২টি করে উইকেট নেন।  ১টি করে উইকেট নেন খাদিজাতুল কুবরা ও নাহিদা আক্তার।

চার দলের সিরিজে বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড, ভারত ‘এ’ ও ভারত ‘বি’ দল অংশ নিয়েছিল। গতকাল থাইল্যান্ডের মেয়েদের হারিয়ে ফাইনালে ওঠে বাংলাদেশ।

 255 total views,  2 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top