আম ও ডাবের ‘এত’ ভোট

পাঁচ বছর আগে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও মেয়র পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) প্রার্থী বাহারানে সুলতান। তখন প্রায় প্রতিদিন গণসংযোগ করার পরও ভোট পেয়েছিলেন মাত্র ৩১৩টি। এবারও তিনি মেয়র পদের প্রার্থী ছিলেন। তবে ভোটে ‘পাস’ করবেন না জেনে প্রচারই চালাননি তিনি। কিন্তু অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, ‘আম’ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করা এই প্রার্থী গতবারের চেয়ে ১০ গুণ ভোট বেশি পেয়েছেন।

বাহারানে সুলতানের প্রাপ্ত ভোট ৩ হাজার ১৫৫। তিনি কোনো পোস্টার লাগাননি, লিফলেটও বিতরণ করেননি। পেশায় ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প ব্যবসায়ী বাহারানে সুলতান ভাড়াটিয়া পরিষদের সভাপতি। প্রচারে না নেমেও এত ভোট পাওয়ার বিষয়ে তিনি বলেন, জনগণ পরিবর্তনের পক্ষে।

শুধু বাহারানে নন, গত সিটি নির্বাচনে ৩৬২ ভোট পাওয়া ‘ডাব’ প্রতীকের মেয়র প্রার্থী আকতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ এবার পেয়েছেন ২ হাজার ৪২১ ভোট।

জাতীয় সংসদে প্রধান বিরোধী দলের দায়িত্ব পালন করা জাতীয় পার্টির (জাপা) মেয়র প্রার্থীর ভোট কিন্তু খুব একটা বাড়েনি। ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে জাপার মেয়র প্রার্থী সাইফুদ্দিন আহম্মেদ ওরফে মিলন পেয়েছেন ৫ হাজার ৫৯৩ ভোট। গত সিটি নির্বাচনেও তিনি জাপার মেয়র প্রার্থী ছিলেন। তখন তাঁর ভোট ছিল ৪ হাজার ৫১৯টি।

প্রতীক বরাদ্দের পর থেকে প্রচারে খুব বেশি সরব ছিলেন না জাপার সাইফুদ্দিন। তিনি  বলেন, ‘এত বেশি ভোট পেয়েছি, এটাই বেশি। নিরপেক্ষ ভোটারদের আশায় নির্বাচনে দাঁড়িয়েছিলাম। কিন্তু ভোটাররা রাজনীতিবিদদের প্রত্যাখ্যান করেছেন।’

ঢাকা দক্ষিণ সিটিতে জাপার প্রার্থীর ৫ গুণ বেশি ভোট পেয়েছেন ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আবদুর রহমান। তিনি পেয়েছেন ২৬ হাজার ৫২৫ ভোট। আর ঢাকা উত্তরে দলটির প্রার্থী শেখ ফজলে বারী পেয়েছেন ২৮ হাজার ২০০ ভোট। ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও আওয়ামী লীগ এবং বিএনপির প্রার্থীদের পর তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থীরা। গত সিটি নির্বাচনে ঢাকা উত্তরে দলটির মেয়র প্রার্থী পান ১৮ হাজার ভোট। আর দক্ষিণের সিটি নির্বাচনে দলের প্রার্থী পান প্রায় ১৫ হাজার ভোট।

১ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত ঢাকার দুই সিটিতে মেয়র পদে লড়েন ১৩ প্রার্থী। ঢাকা দক্ষিণে (ডিএসসিসি) ৭ জন আর উত্তরে (ডিএনসিসি) ৬ জন। নির্বাচনী ফলাফল বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, প্রাপ্ত ভোটের হিসাবে জামানত হারিয়েছেন ৯ প্রার্থী। দুই সিটিতে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির চার প্রার্থীই শুধু জামানত বাঁচাতে পেরেছেন।

 275 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top