চীন থেকে এখন কাউকে ফেরত আনা সম্ভব নয়’

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব আতঙ্কে চীনের হুবেই প্রদেশ থেকে দেশে ফিরতে চাওয়া ১৭১ বাংলাদেশিকে আপাতত দেশে আনা সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তবে তিনি জানান, নিজ ব্যবস্থায় তারা চাইলে আসতে পারবেন। প্রয়োজনে খরচ বহন করবে সরকার।

শনিবার ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এমন মন্তব্য করেন। ড. মোমেন বলেন, ‘যারা এখন আসতে চাচ্ছেন, তাদের জন্য আমরা অনেক খরচ করেছি। তারপরও সম্ভব হচ্ছে না। বিমানের ক্রুরা কেউ বাইরে যেতে পারছেন না, বিমান কোথাও যেতে পারছে না। সিঙ্গাপুর পর্যন্ত যেতে পারছে না।’

তিনি বলেন, ‘একমাত্র চাইনিজ চার্টার্ড ফ্লাইটে তাদের আনা সম্ভব হতো। একপর্যায়ে চীন রাজিও হয়েছিল। কিন্তু পরে তারা না করে দিয়েছে। আমরা তো কোনো ফ্লাইট পাঠাতে পারছি না, কোনো ক্রুও যেতে চাচ্ছেন না।’

চীনে থাকা বাংলাদেশি নাগরিকদের আরও কিছুদিন অন্তত সেখানে থেকে তারপর দেশে ফেরার পরামর্শ দেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আটকে পড়া বাংলাদেশি শিক্ষার্থীরা খাদ্য সংকটে পড়েছে বলে জানানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে ড. মোমেন বলেন, তাদের খাওয়া-দাওয়া চাইনিজরা এনশিওর (নিশ্চিত) করছে। ২৩টি জায়গায় বাংলাদেশিরা থাকে, সব জায়গায়ই খাবার-পানি সময়মতো পাঠিয়ে দিচ্ছে তারা। তারা খাবার সংকটে আছে বলে যেসব কথা শোনা যাচ্ছে, তা সঠিক নয়।

মন্ত্রী আরো বলেন, ‘আমাদের দূতাবাস ওদের সঙ্গে সবসময় যোগাযোগ রাখছে। ৩৮৪ জনের একটা গ্রুপ কনটিনুয়াসলি খোঁজ নিচ্ছে তাদের।’

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল চীনের উহান শহর থেকে গত ১ ফেব্রুয়ারি বিমানের একটি উড়োজাহাজে ৩১২ বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত আনা হয়।

কিন্তু উহানে যাওয়া ওই পাইলটদের ঢুকতে দিচ্ছে না অন্য দেশ। ফলে বিপাকে পড়েছে বাংলাদেশ বিমান। এদিকে চীনের বিভিন্ন শহরে অবরুদ্ধ অবস্থায় দিন কাটানো বাংলাদেশিরা তাদের দেশে ফেরত আনার আকুতি জানাচ্ছেন বারবার।

 231 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top