সংবাদ শিরোনাম:

শিকলে বাঁধা জীবন ২ সহোদরের

জীবনের ৩২টি বছর বিছানায় শুয়েবসে কাটিয়েছেন শারীরিক প্রতিবন্ধী খোরশেদ আলম। তাঁর ভাই মানসিক প্রতিবন্ধী মোরশেদ আলম (২১) গত পাঁচ বছর ধরে শিকলে বন্ধি।

প্রতিবন্ধী এ দুই সন্তানকে নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন লক্ষীপুর সদর উপজেলার হতদরিদ্র এক পরিবার। খোরশেদের জন্মের পর থেকেই পরিবারটি স্বাভাবিক জীবনের উচ্ছ্বাস থেকে বঞ্চিত। নানান উৎসবে অন্যরা যেখানে আনন্দ করে, তারা তখন ঘরের দরজা বন্ধ করে কান্না করেন। প্রতিবন্ধী এই দুই ভাইয়ের চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবানদের সহযোগিতা চেয়েছেন পরিবারটি।

পরিবারের একমাত্র উপার্জনকারী রিকশা চালক আজাদ আট বছর আগে এক সড়ক দুর্ঘটনায় রিকশা চালানোর ক্ষমতা হারান। এখন তিনি লক্ষীপুর সদর উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের ইছাগো তেমুহনী বাজারে খুচরা পান বিক্রেতা। প্রতিদিনের আয়ে কোনরকম সংসার চলে তার। কিন্তু অসুস্থ ছেলেদের চিকিৎসার খরচ চালানোর সাধ্য নেই তার।

সরেজমিনে গিয়ে শনিবার দুপুরে দেখা যায়, মানসিক প্রতিবন্ধী মোরশেদের পায়ে তিন ৪-৫ ফুট শিকল দিয়ে ঘরের চৌঁকাঠের সঙ্গে বেঁধে রাখা হয়েছে। প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিলে ছেলেটিকে মা খুরশিদা বেগম একটি প্লাস্টিকের পাত্র এনে দেন। আর বড় ছেলে খোরশেদ বিছানায় শুয়ে চিৎকার করছে। জন্মের পর থেকে তিনি একদিনের জন্যও উঠে বসতে পারেনি। কথাবার্তা স্বাভাবিক থাকলেও বিছানায় দিন কাটছে তার। খরচ বহন করার সাধ্য না থাকায় চিকিৎসকের কাছেও নেওয়া হচ্ছে না তাদের।

জানা যায়, ছেলে-মেয়েদের নিয়ে আজাদ সদর উপজেলার কামানখোলা এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকতেন। পরে স্থানীয়দের সহযোগীতায় উপজেলার চররুহিতা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড চরলামচি গ্রামে টিনশেড ঘরে তারা বসবাস করছেন।

খোরশেদ ও মোরশেদের মা খুরশিদা বেগম বলেন, বড় ছেলেটি একটিবারের জন্য শোয়া থেকে উঠে বসতে পারেনি। কোলে করে তুলে এনে তাকে গোসল করাতে হয়। ছোট ছেলেটি জন্মের পর ৭ বছর পর্যন্ত ভালো ছিল। হঠাৎ করে ছেলেটি মানসিক বিকারগ্রস্ত হয়ে পড়ে। কোথাও গেলে বাড়িতে ফিরে আসতে পারে না। এ কারণে অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে গত ৫ বছর ধরে তাকে শিকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়েছে।

চররুহিতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবির পাটওয়ারী বলেন, পরিবারটির খোঁজ নেওয়া হবে। তাদেরকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা দিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফেরানোর জন্য উদ্যোগ নেয়া হবে।

এ বিষয়ে সদর  উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা শফিকুর রেদোয়ান আরমান শাকিল বলেন, সরকারিভাবে ঐ দুই প্রতিবন্ধী ভাতা পাচ্ছেন। তাদের চিকিৎসা সেবা নিশ্চিত করা সহ ভবিষ্যতে বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা দেওয়ার আশ্বাস দেন তিনি।

 297 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top