করোনাভাইরাসের সংবাদ প্রচার করা সেই সাংবাদিক নিখোঁজ

করোনাভাইরাসের উৎপত্তিস্থল উহানের ভয়ানক পরিস্থিতি তুলে ধরা সেই সাংবাদিক চেন কুইশিও নিখোঁজ হয়েছেন। গত বৃহস্পতিবার সকাল সাতটা থেকে তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। চেন কুইশিওর পরিবার জানায়, তার মোবাইল ফোনে কল ঢুকলেও কোনো জবাব আসছে না।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইলের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, এই চীনা সাংবাদিকের প্রতিবেদনে উহানের লোমহর্ষক ঘটনাবলী উঠে আসে। যেমন, হুইলচেয়ারে মৃত স্বজনের পাশে বসা এক নারী তার পরিবারকে পাগলের মতো ফোন করছেন। রোগীদের এই অসহায় পরিস্থিতি হাসপাতালের অপর্যাপ্ত চিকিৎসা ও সরঞ্জামাদির অভাবের বিষয়টিই বলে দিচ্ছে।

তার উধাওয়ের বিষয়টি এমন এক সময় গণমাধ্যমে চলে এসেছে, যখন করোনাভাইরাস প্রথম শনাক্তকারী চিকিৎসক ডা. লি ওয়েনলিয়াংয়ের মৃত্যু নিয়ে দেশে-বিদেশে নানা রকম আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে।

চেন কুইশিও বড় বড় হাসপাতাল, করোনাভাইরাসে সংক্রমিতদের বাড়ি, মৃতদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়া ও উহানের আবাসিক এলাকাগুলো পরিদর্শন করে করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীদের তথ্য বের করার চেষ্টা করেন। রোগী ও স্বজনদের সঙ্গে তিনি সরাসরি কথা বলে টুইটার ও ইউটিউবে সেসব ভিডিও পোস্ট করেন। যদিও ভিডিও শেয়ারের এসব সামাজিকমাধ্যম চীনে নিষিদ্ধ, কিন্তু অন্য সফটওয়্যার দিয়ে তা দেখা সম্ভব।

নিখোঁজ হওয়ার আগে ফ্যাং ক্যাং আশ্রয়কেন্দ্র হাসপাতাল পরিদর্শনের কথা ছিল চেন কুইশিওর।

এদিকে তার টুইটার থেকে পোস্ট করা এক ভিডিওতে তার এক বন্ধুকে বলতে দেখা যায়, ‘যখন চেন কুইশিওকে তুলে নেওয়া হয়েছে, তখন তার স্বাস্থ্য ও শরীরের তাপমাত্রা স্বাভাবিক ছিল। কাজেই ভালোভাবেই তিনি ফিরে আসবেন বলে আমরা অপেক্ষায় রয়েছি। তিনি এখনো পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি।’

চেন কুইশিওকে নিরাপদ অবস্থায় ফিরিয়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে তার মা একটি ভিডিও পোস্ট করেন। সিএনএনকে তার এক বন্ধু বলেন, ‘তার শারীরিক নিরাপত্তা নিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন। আশঙ্কা হচ্ছে, তিনি যখন নিখোঁজ হয়েছেন, তখন এই ভাইরাস তার শরীরেও সংক্রমিত হতে পারে।’

নির্মাণাধীন হাসপাতালগুলোর অবস্থা সরেজমিনে দেখতে যান এই সাংবাদিক। করোনাভাইরাস নিয়ে উহান প্রশাসনের সিদ্ধান্তগুলো নি

 287 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top