সংবাদ শিরোনাম:

জীবিত থেকেও জাতীয় পরিচয়পত্রে মৃত জামালপুরের ৯ ব্যক্তি

মারা যাননি কিন্তু মৃত দেখিয়ে ভোটার তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে জামালপুরের মাদারগঞ্জ উপজেলার ৯ ব্যক্তির নাম। এতে করোনা টিকার নিবন্ধনসহ সরকারি-বেসরকারি কোনো কাজই করতে পারছেন না তারা। আর নির্বাচন অফিসে দীর্ঘদিন ঘুরেও প্রতিকার পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ তাদের। ভুক্তভোগীরা হলেন-পৌরসভার বীরগোপালপুর এলাকার মৃত মজিবর শেখের ছেলে মো. ফকির আলী, চর গাবেরগ্রাম এলাকার মৃত মুনছুরের ছেলে মো. মোখলেছ, বলদ ভরা বানীকুঞ্জ এলাকার রমিজ উদ্দিনের স্ত্রী মোছা. শাপলা, মোছা. কমেলা, মো. নাজির হোসেন মন্ডল, মায়া রাণী, মো. ফটিক মন্ডল, মো. আলী হোসাইন এবং লাভলী। ভুক্তভোগী মো. মোখলেছ বলেন, আমি করোনার টিকা নিতে গিয়ে দেখি রেজিস্ট্রেশন হয় না। পরে জানতে পারলাম জাতীয় পরিচয়পত্রে আমি মৃত। বুঝতে পারতেছি না কেমনে কি হইলো। মানুষ এহন আমারে নিয়া হাসাহাসি করে আমি নাহি মইরা গেছিগা। মো. ফকির আলী জানান, ভোটার কার্ডে মৃত থাকায় তার ছেলে পাসপোর্ট করতে গিয়ে ঝামেলায় পড়েছেন। সরকারি কোনো সুযোগ-সুবিধাই পাচ্ছেন না তিনি। নেতাদের কাছে গেলেও তারা আইডি কার্ড ঠিক নেই বলে কোনো সহযোগিতা করেন না। মোছা. শাপলা বলেন, আমার আইডি কার্ডে আমারে মৃত বানায় থুইছে। জমির কাগজপাতি করবের পাইতাছিনে। আমি কাগজে কলমে বলে মইরে গেছিগে। উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মো. জামান হোসেন চৌধুরী জানান, ভোটার তালিকা হালনাগাদ করেন শিক্ষকরা, এটা তাদের ভুল। আমরা এরইমধ্যে এসব তালিকা সংশোধনের জন্য জেলা কার্যালয়ে পাঠানো হয়েছে। খুব দ্রুতই বিষয়টি সমাধান হবে বলে জানান তিনি।

 35 total views,  1 views today

প্রকাশিত সংবাদ বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি,পাঠকের মতামত বিভাগে প্রচারিত মতামত একান্তই পাঠকের, তার জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়।
Top